পেকুয়ায় ভূমি অফিসের উম্মেদার রিদুয়ানুল ইসলামের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

পেকুয়া প্রতিনিধি :
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলা ভূমি অফিসের উম্মেদার মো: রিদুয়ানুল ইসলামের বিরুদ্ধে পেকুয়ার সাবেক ইউএনও মাহবুবউল করিমের বাসার গৃহপরিচারিকা কিশোরী (২১) কে বিয়ের প্রলোভনে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এদিকে এ ঘটনায় পুরো পেকুয়াজুড়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে পেকুয়া সদর ইউনিয়নের পশ্চিম বাইম্যাখালী গ্রামের জনৈক অসহায় বিধবা নারীর ওই কিশোরী কন্যা (সংঘত কারণে কিশোরীর নাম ও পরিচয় গোপন রাখা হলো) গতকাল ১৮ সেপ্টেম্বর পেকুয়া উপজেলার নবাগত ইউএনও সাঈকা শাহাদাতকে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।
পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে এ প্রতিবেদককে বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। দুই পক্ষের বক্তব্য শুনব। তারপর দোষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ভূমি অফিসে উম্মেদার রাখার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ইউএনও বলেন, তিনি পেকুয়া উপজেলায় সবেমাত্র যোগদান করেছেন। রিদুয়ান উম্মেদার কিনা তার জানা নাই। তবে তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন রিদুয়ান ভূমি অফিসের সরকারী কর্মচারী নাকি উম্মেদার।
পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ওই কিশোরীর স্বাক্ষরিত অভিযোগ নামায় উল্লেখ করেছেন, পেকুয়ার সাবেক ইউএনও মাহবুবউল করিমের বাসায় গৃহপরিচারিকা হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে তিনি কাজ করছিলেন। এ সুযোগে পেকুয়া ভূমি অফিসের উম্মেদার পরিচয়ধারী, চকরিয়া উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলা গ্রামের ঘাইট্টার চর গ্রামের মৃত মকছুদ আহমদের পুত্র রিদুয়ানুল ইসলামের সাথে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে তাকে বিয়ের প্রলোভনে তার সাথে রিদুয়ান একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কে জড়ায়। সম্প্রতি তিনি রিদুয়ানকে বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করলে রিদুয়ান বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। ওই কিশোরী পেকুয়ার সদ্য বদলীকৃত ইউএনওকে বিষয়টি লিখিতভাবে জানিয়েছিলেন। ইউএনও ওই কিশোরীকে বিচারের আষ¦াস দিয়েছিলেন। কিন্তু ইউএনও মাহবুবউল করিম বদলী মুহুর্তে কোন সমাধান দিতে না পারায় পেকুয়ার নব যোগদানকৃত ইউএনওর কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ দাখিল করেছেন।
ওই কিশোরী জানান, তাকে বিয়ের মিথ্যা আশ^াস দিয়ে ভূমি অফিসের রিদুয়ান তার সম্ভ্রম লুট করেছে। এখন বিয়ে করছেনা। প্রতারণার শিকার কিশোরী পেকুয়া ভূমি অফিসের লম্পট উম্মেদার রিদুয়ানের কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন।
অভিযোগের বিষয়ে রিদুয়ানুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এসব তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। তিনি এ ধরনের কোন ঘটনার সাথে জড়িত নয় বলেও দাবী করেছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে পেকুয়া উপজেলা ভূমি অফিসের উম্মেদার হিসেবে কানুনগোর কক্ষে (বেতন-ভাতাবিহীন) কাজ করে আসছেন অভিযুক্ত রিদুয়ান। ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে নানান অপকর্মে জড়িয়ে পড়লেও প্রভাবশালী এক কর্মকার্তার ইশারায় রিদুয়ান বীরদর্পে ভূমি অফিসে উম্মেদার হিসেবে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। বিগত ২০১৩ সালে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের এক আদেশে জেলার ভূমি অফিসগুলোতে কোন ধরনের উম্মেদার রাখার জন্য এসিল্যান্ডদের লিখিতভাবে নির্দেশনা দিয়ে পত্রজারি করেছিল। এরপরেও পেকুয়া উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগোর কক্ষে রিদুয়ান উম্মেদার হিসেবে অবৈধভাবে কাজ করে যাচ্ছে।