উখিয়ায় আদালতের আদেশ অমান্য করে সংখ্যালঘুর জায়গায় স্হাপনা নির্মাণের অভিযোগ 

 

নিজস্ব প্রতিনিধি:

উখিয়ার মরিচ্যা  সংলগ্ন  গোরামিয়া গ্যারেজ  এলাকায় আদালতের আদেশ অমান্য করে  সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জায়গায় জোরপূর্বক স্থাপনা নির্মাণের  অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ  ঘটনায় দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী   সংঘর্ষ সহ  উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার ( ২২ নভেম্বর)    সকালে।  যার মামলা নং এম আর ১২০৫ তারিখ ২০/১১/২০১৯।

মামলার বাদী বয়োবৃদ্ধ নিরহ মহিলা    আনন্দ বালা বড়ুয়া (৫৫)  অভিযোগ করে বলেন আদালতের  নির্দেশে  বিবাদী রহিমা বেগম সহ অন্যান্যদেরকে  নালিশি জমিতে  অনুপ্রবেশ  কিংবা শান্তি-শৃঙ্খলা বিঘ্ন   সৃষ্টি না করার জন্য উখিয়া থানার পুলিশ গত ২১ নভেম্বর      নোটিশ  প্রদান করলেও  বিবাদী  গং   অগ্রাহ্য করে  লোহার রড,  সিমেন্ট,  বালু  ও  কংক্রিট  দিয়ে  সন্ত্রাসী বাহিনীর  সহযোগিতায় অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ কাজ  চালিয়ে যাচ্ছেন।

গ্রামবাসীরা জানান, উপজেলার হলুদিয়া পালং ইউনিয়নের রুমখা পালং   গ্রামের মৃত ভানু   বড়ুয়া প্রকাশ  সাধন  বড়ুয়ার  স্ত্রী আনন্দ বালা বড়ুয়া একজন ভূমিহীন অসহায় নারী। বিগত ২০০৫ সালে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক  ভূমিহীন হিসেবে তাকে একখণ্ড খাস  জমি বন্দোবস্তী    প্রদান করেন। উক্ত খাস জমি  প্রাপ্ত হয়ে  উখিয়া ভূমি অফিস হতে তার নামে বি এস খতিয়ান সূজিত হয়।  যার নম্বর

মৌজা মরিচ্যা পালং, সৃজিত বিএস ৪৩৯ নম্বর খতিয়ানের বিএস ২০৮৮ দাগের সম্পৃর্ণ। পরিমাণ  . ২৯ একর ও বিএস ২১০১ দাগের সম্পৃর্ণ . ১৬ একর  সর্বমোট .৪৫ একর।

সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যরা জানান  উক্ত জাগায় নার্সারি স্থাপন করে বিভিন্ন ফলজ ও বনজ  গাছের   চারা  উৎপাদন করে  কোনরকম জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল  অসহায় পরিবার।

অভিযোগে প্রকাশ, স্থানীয় সাহাব মিয়ার স্ত্রী রহিমা বেগম ও তার ছেলেদের  কু দৃষ্টি পড়ে ওই জায়গার উপর।    সংখ্যালঘু মহিলা হওয়ার সুযোগে ভূমি দৃস্যরা   জবরদখলের পায়তারা শুরু করে।

এ ব্যাপারে আইনের প্রতিকার চেয়ে জায়গার মালিক  নিরহ আনন্দ বালা  বড়ুয়া বাদী হয়ে গত  ২০ নভেম্বর   কক্সবাজার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৪৪ ধারার   নিষেধাজ্ঞার আবেদন করেন।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে এদত সংক্রান্ত বিষয়ে   সরোজমিন  তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য উখিয়া সহকারি কমিশনার( ভূমি) কে বলা হয়। একই সাথে বিরোধীয় জায়গায় শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য উখিয়া থানার    অফিসার ইনচার্জ কে আদেশ দেন। যার স্বারক নম্বর ১৭০৬/২০১৯।

থানা সূত্রে জানা যায়, আদালতের আদেশ মোতাবেক এস আই ফারুক হোসেন গত ২১ নভেম্বর  বিবাদী রহিমা বেগম তার  ছেলে মোঃ মালেক ও মোহাম্মদ আলীকে নালিশি জাগায় অনুপ্রবেশ করে কোন প্রকার কার্যক্রম না করার জন্য সতর্কীকরণ নোটিশ প্রদান করেন।  উক্ত  নোটিশে আরও বলা হয়  অমান্য করলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে।

মামলার বিবাদী ভূমিহীন  নিরহ আনন্দ বালা বড়ুয়া অভিযোগ করে বলেন, সংখ্যালঘু হওয়ায়   তার  নিজস্ব ভোগ  দখলীয় জায়গায় বিবাদী গংরা অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করতেছে।আদালত ও পুলিশের আদেশ কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সন্ত্রাসী বাহিনী ভাড়া করে প্রকাশ্যে রড সিমেন্ট, বালু ও কংক্রিট মজুদ করে স্থাপনা নির্মাণ করে যাচ্ছে ভূমিদস্যুরা।

জবর দখলকারীর কবল হতে   জায়গা  মুক্ত করার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।